নিরক্ষরতা দূরীকরণ ( Elimination of Illiteracy)

ভূমিকা:

অক্ষর জ্ঞান যার নেই তাকেই নিরক্ষর বলা যেতে পারে। নিরক্ষর মানুষ জীবনের সবদিক থেকেই পিছিয়ে নিরক্ষরতা বহু ক্ষেত্রে মানুষের সার্বিক আত্মিক বিকাশের অন্তরায়। নিরক্ষরতার অভিশাপে অভিশপ্ত ব্যক্তি সাধারণতঃ নিজের অথবা সমাজের জন্য কিছু করে দেখাতে পারেনা। নিরক্ষরতার পরিণতি হলো নিরবতার অনুসরণ করা অর্থাৎ প্রত্যেক ক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়া। নিরক্ষর মানুষ পৃথিবীকে নিজেকে পরিবেশকে লাঞ্ছনা কে ও শোষণ কে জানতে পারেনা। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বলেছেন মানুষের অন্ধত্বের মত নিরক্ষরতা এই দুর্ভাগ্য দেশের হতভাগ্য জনগণের সর্বাপেক্ষা নিষ্ঠুরতম অভিশাপ। নিরক্ষরতার স্বরূপকে বোঝার জন্য আমরা আমাদের দেশ ভারত কে বুঝলেই চলবে- যেখানে মোট জনসংখ্যার এক-তৃতীয়াংশ নিরক্ষর। এই নিরক্ষতা কে দূর করা একান্ত প্রয়োজনীয়।

ভারতের নিরক্ষরতা সেকাল ও একাল :

নিরক্ষরতা ভারতের কাছে নতুন কিছু নয়- ভারতের শ্রমিক শ্রেণীর মানুষরা বোধ হয় সেই বৈদিক যুগ থেকেই সাক্ষরতার সংজ্ঞা জানেনা। মোঘল আমলে ও জনসংখ্যার এক বৃহৎ অংশের অক্ষর জ্ঞান ছিল না। স্ত্রী শিক্ষার ও প্রচলন ছিল না। ইংরেজ আমলের নিরক্ষরতা প্রবল ভাবে বুদ্ধি লাভ করল। ইংরেজি না ভালোভাবে বুঝেছিল যে ভারতীয়রা যদি শিক্ষালাভের সুযোগ পায় তবে তারা বর্তমান পরিস্থিতি কে ভালোভাবে বুঝতে পারবে। বুঝতে পারবে যে ইংরেজরা তাদের কতখানি ক্ষতি করে দিচ্ছে। ভারতে তারা যেশিক্ষার প্রচলিত করেছিল তার উদ্দেশ্য ছিল রাজ্য শাসন ও বাণিজ্য পরিচালনার জন্য ইংরেজি জানা দেশীয় কর্মচারী তৈরি করা। এ শিক্ষায় শিক্ষিত ব্যক্তিরা সাধারণত ইংরেজদেরঅনুচর হতেন। সমাজের বৃহত্তর অংশকে শিক্ষিত করার ইচ্ছা ও সামর্থ্য তাদের থাকতো না। রাজা রামমোহন রায় ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যাসাগর রাজনারায়ণ বসু কেশব চান্দ্র সেন প্রমুখ মনীষীরা এই চক্রান্তকে অনেকাংশে ব্যর্থ করেছিল। তবু সাক্ষরতার প্রসার বিশেষ ঘটেনি | ইংরেজরা যখন ভারত ছেড়ে গিয়ে ছিল তখন জনসংখ্যার শতকরা মাত্র ১৪ ভাগ ছিল সাক্ষর। কিন্তু যদি দেশের ভদ্র সমাজ জনসাধারণকে শিক্ষিত করার জন্য আগে থেকেই সচেষ্ট হত তবে হয়তো এ দূরবস্থায় পড়তে হত না । রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নিরক্ষরতার অন্ধকার দেখে মন্তব্য করেছিলেন আমাদের ভদ্রসমাজ আরামে আছে কেননা আমাদের লোক সাধারণ নিজেকে বোঝে না । নিজেকে যথাযথ ভাবে বুঝতে হলে অক্ষর জ্ঞানের মাধ্যমে সুপ্ত শক্তির বিকাশ ঘটাতে হবে । স্বামীজী বলেছেন “Education is the manifestation of the perfect tion already in man ” আমাদের দেশের মানুষ একদিকে মধ্যযুগের ধ্যান ধারণায় সংস্কার বদ্ধ শিক্ষা গ্ৰহণ করেনি এবং অপরদিকে ইংরেজরা এই সুযোগে শোষনের পথকে করেছে সুগম প্রশস্ত ও সহজ । শিক্ষা বিস্তারের কাজ এখন ও অনেকাংশে বাকি আছে । বর্তমান ভারতে শিক্ষাবিস্তারে ব‍্যথ‍্যতার মূল কারণগুলি হল -প্রথাগত শিক্ষার শক্তি হীনতা দারিদ্র পীড়িত লোকদের শিক্ষা গ্রহণে উদাসীনতা পড়াশোনার উপকরণের মূল্য বৃদ্ধি ইত্যাদি । আমাদের প্রথাগত শিক্ষা অত্যন্ত শক্তিহীন । এই শিক্ষা পদ্ধতিতে ছাত্রদের প্রেরণা যোগানোর মত কোন বিষয় নেই । ভারতীয়দের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে বুঝতে দেয় না। এই শিক্ষা ভারতীয়দের একে অপরকে জানতে ও দেয় না। সমাজকে জানা অথবা সমাজে বাস করা সম্পর্কে কোন প্রকার শিক্ষাই দেওয়া হয় না । ফলে কিছু বিষয় ছাত্রদের কাছে শিক্ষনীয় বিষয় না হয়ে বোঝা হয়ে গেছে । দ্বিতীয়ত দারিদ্র্য পীড়িত লোকেরা শিক্ষা গ্রহণ করার ব্যাপারে অত্যন্ত উদাসীন । তারা তাদের ছেলে মেয়েদের শিক্ষা গ্রহণ না করতে দিয়ে সরাসরিভাবে কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করিয়ে দেয় । ফলে সরকার SC(Scheduled Caste)ও ST (Scheduled Tribes) দের শিক্ষিত করে তুলতে গিয়ে যথেষ্ট‌ই ব‍্যর্থ হয়েছে। তৃতীয়ত তখন পড়াশোনা উপকরণের মূল্য এত‌ই মারাত্মক রকমে বৃদ্ধি পেয়েছে যে দরিদ্র ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষা গ্রহণ করা প্রায় অসম্ভব । সরকারের তরফ থেকে যদিও উৎসাহের সীমা নেই বহু সংখ্যক বিদ্যালয়ে ছাত্রছাত্রীরা বিনামূল্যে শিক্ষাগ্ৰহণ করার সুযোগ পায় তবুও যথাযথ ভাবে শিক্ষা বিস্তার হয় না ভালো শিক্ষকের অভাবে।এসব কারণে ভারতের জনসংখ্যার এক বৃহৎ অংশটি আজ নিরক্ষর।

শিক্ষা বিস্তারের প্রয়োজন ও প্রতিকার

বতর্মানে শিক্ষা বিস্তারের প্রয়োজনীয়তা আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে একটি দেশের উন্নতি নির্ভর করে তার জনসাধারণের উপরে । কিন্তু ভারতের আজ প্রায় ৩৫ কোটি মানুষ অজ্ঞতার অন্ধকারে নিমজ্জিত । স্কুল ,কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়, ইত্যাদির সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে , কিন্তু সাক্ষরতা সে হারে বৃদ্ধি পায় নি। কারণ এক আমাদের শিক্ষা পদ্ধতিতেই আছে গলদ। রবীন্দ্রনাথের মতে,’নতুন কে ঢালাই করিতেছি সেই পুরাতনের ছাঁচে ।’ আমাদের লজ্জার বিষয় এই যে ভারতে বহু মানুষ নিজের নাম লিখতে জানে না, টিপস‌ই করে তাদের চালাতে হয়। এ সকল অজ্ঞ মানুষের ভোটের ও কোন মূল্য নেই। জনৈক শিক্ষাবিদের মতে ,’পরাধীনতার অবসানে আমাদের দুয়ারে পশ্চিমের গণতন্ত্রের নবযুগের রথকে মূঢ়, নিরক্ষর ও অন্ধ জনগণ অন্যের নির্দেশে টেনে নিয়ে চলেছে।’ অশিক্ষাকে বজায় রেখে কোন দেশে উন্নতি করতে পারে না। আমাদের অর্থাৎ ভদ্র সমাজের প্রথম কাজ হচ্ছে অশিক্ষিত লোকদের শিক্ষিত করা। কিন্তু বুভুক্ষু জনসাধারনকে শিক্ষিত করার অর্থ হল লেলিহান অগ্নিশিখা ফুঁ দিয়ে নেভানোর চেষ্টা মাত্র । সুতরাং সর্বপ্রথমে অশিক্ষিত মানুষদের খাদ্য সংস্থানের ব‍্যবস্থ করে দিতে হবে। আমাদের দেশে ধনী লোকের অভাব নেই। তাদেরকে দেশাত্মবোধে উদ্বুদ্ধ করলেই তারা ও আমাদের পুণ্যকর্মে যোগদান করবে। নিরক্ষরতা দূরিকরণের পথ আমাদের সামনে বন্ধ নয়। ছাত্র সমাজকে এ ব্যাপারে অগ্ৰণী ভূমিকা গ্ৰহণ করতে হবে।আমাদের পশ্চিমবঙ্গের প্রত্যেক বছর পাঁচ ছয় লক্ষ ছাত্রছাত্রী মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়। তারা যদি অত্যন্ত একজন করে অশিক্ষিত লোককে শিক্ষা দেওয়ার ভার নেয়,তবে প্রত্যেক বছর সমান সংখ্যক লোক সাক্ষরতা অর্জন করতে পারবে ।বড় বয়সের ছাত্রছাত্রীরা যদি গ্ৰামে গ্ৰামে নৈশ বিদ্যালয় ও বয়স্ক শিক্ষা কেন্দ্র স্থাপন করে শিক্ষাবিস্তারের কাজে আত্মনিয়োগ করে, তবে দেশের অনেক উন্নতি হবে। মনে রাখতে হবে যে ত্যাগ ব‍্যতীত কোন প্রয়াস‌ই সফল হয় না।ভগিনী নিবেদিতার অসামান্য ত‍্যাগের জন্যই আজ নিবেদিতা গার্লস স্কুল স্বনামধন্য ,স্বামীজী ও তাঁর অন্যান্য গুরুভ্রাতাদের ত্যাগের জন্যই আজ রামকৃষ্ণ মিশন হয়েছে জগদ্ধিখ‍্যাত।

উপসংহার :

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের চিন্তায় উদ্ধুদ্ধ হয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকার ১৯৮৭ খ্রীষ্টাব্দের ৮ই সেপ্টেম্বর উদ্বোধন করেছেন বঙ্গীয় সাক্ষরতা প্রসার সমিতি।১৯৮৮ সালে মে মাসে National Literacy Mission (N.L.M) প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৯১ খ্রীষ্টাব্দে পশ্চিমবঙ্গে সাক্ষরতার অভিযান চালানো হয়। আশা করা য়ায় যে এতে বিশেষ লাভ হয়েছে। ভারতের বহু গ্ৰামে গ্ৰামীন গ্ৰন্থাগার প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে।এর দরুণ প্রথাবহির্ভূত শিক্ষা বহু অংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। কালমাক্র্স শ্রমিকদের উদ্দেশ্য করে বলেছিলেন ,”Workers of the world unite .You have nothing to lose but your chains,and a world to win.”শিক্ষা বিস্তার ব্যতীত এই আদর্শকে শ্রমিকদের মধ্যে প্রচারিত করার দ্বিতীয় পন্থা নেই। নিরক্ষরতা মুক্ত সমাজ হল স্বগতুল‍্য। এ হেন সমাজ প্রতিষ্ঠিত করার জন্য সরকার ও জনসাধারণ উভয়কেই এগিয়ে আসতে হবে।স্বামীজী বলেছেন- Real education is that which helps one to stand on his own legs.।এই শিক্ষা থেকে কেউ যেন বঞ্চিত না হয় ।সুতরাং প্রত্যেকেই স্মরণ করতে হবে এই সব মূঢ় ম্লান মূক মুখে দিতে হবে ভাষা । এই সব শ্রান্ত শুষ্ক ভগ্ন বুকে ধ্বনিয়া তুলিতে হবে আশা।

Related Posts

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Facebook
WhatsApp
Twitter
Email
Telegram
error: Content is protected !!
Scroll to Top