বারো মাসে তেরো পার্বণ (Bengali Festivals)

‘এত ভঙ্গ বঙ্গদেশ, তবু রঙ্গে ভরা।
– ঈশ্বর গুপ্ত

নিষ্কলুষ আনন্দ লাভের আশায় যে পবিত্র অনুষ্ঠানের প্রাঙ্গণে আবাল বৃদ্ধ বনিতার উল্লসিত সমাবেশ ঘটে তার নাম উৎসব। ভূমিকা:- উৎসব মানুষের প্রাণশক্তির বৈচিত্র্যময় অভিব্যক্তি। প্রত্যহ মানুষ দিন একাকী কিন্তু উৎসবের দিনে বৃহৎ। উৎসবের দিনে থাকে না মালিন্য স্পর্শ কোন সাংসারিক দুঃখ-সুখের ছোটখাটো ঘটনা। মানুষ সেদিন আত্মসুখের সীমিত গন্ডির বাইরে এসে সকলকে উদারভাবে আহ্বান জানায়। অন্তরে উদ্বোধিত হয় কল্যাণ পুত সমাজচেতনা। ঋতুর বর্ণময় আত্মপ্রকাশের সঙ্গে বাঙালির মানসিক সামাজিক ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক জীবনে ‘বারো মাসে তেরো পার্বণ’ এর সম্পর্ক। উৎসব জীবনের ছন্দ স্পন্দ প্রতিদিনের তুচ্ছতার যবনিকা উত্তোলন আত্মার প্রসারণের চলন্তিকা উৎসব মিলন শান্তি মৈত্রীর ত্রিবেণী বন্ধন।

বাংলার উৎসবের উদ্দেশ্য:-

উৎসব বাঙালির প্রাণ তার স্বতঃস্ফূর্ত অভিব্যক্তি। উৎসবের পর উৎসব তাদের আনন্দ ও কলহাস্য মুখরতায় তার ঘর আলো করে আসে। তার এই অতিরিক্ত উৎসব প্রিয়তার পটভূমিতে আছে অফুরন্ত প্রাণপ্রাচুর্য বঙ্গ প্রকৃতির অবারিত প্রসন্নতা নয়ন শোভন সৌন্দর্যে অনুপম রুপশ্রী। বাঙালির এই উৎসবের উদ্দেশ্য হল প্রীতি ও প্রেমের পূণ্য বন্ধন।—-” আমার শুভ সকলের শুভ হোক আমি যাহা পাই তাহা পাঁচজনের সহিত মিলিত হইয়া উপভোগ করি” – এউ কল্যাণী ইচ্ছাই উৎসবের প্রাণ। একটা একটা উৎসব আসে এবং এক সময় চলে যায়। বাঙালি চায় সুখ দুঃখ সকলের সাথে ভাগ করে নিতে চায় বৈচিত্রের আনন্দ সংকীর্ণতা থেকে মুক্তি সান সাম্য মৈত্রী ও স্বাধীনতার বাণী সকলের মধ্যে প্রচার করতে।

উৎসবের শ্রেণীবিভাগ:-

রূপসী বাংলার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের সুরে সুর মিলিয়ে বাঙালি তার প্রাচুর্যে ভরা প্রাণশক্তির স্বতঃস্ফূর্ত প্রকাশের উল্লাসে মেতে ওঠে নিত্য নব উৎসব রচনায়। সাধারণত বাঙালির উৎসব কে চারটি শ্রেণীতে ভাগ করা যায়– ধর্মীয় উৎসব ,ঋতু উৎসব ,সামাজিক উৎসব ,জাতীয় উৎসব।

ধর্মীয় উৎসব:-

বাংলাদেশ নানা ধর্মসাধনার পীঠস্থান। হিন্দু মুসলমান বৌদ্ধ খ্রিস্টান নানা ধর্মের উপাসকদের সহাবস্থান এই বাংলাদেশে। হিন্দু ধর্মের উৎসব গুলির মধ্যে নববর্ষের সিদ্ধিদাতা গণেশের পূজা দিয়ে বর্ষারম্ব সূচিত হয়। তারপর দশহরা রথযাত্রা রাখি পূর্ণিমা মনসা পূজা বিশ্বকর্মা পূজার পর আসে বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপূজা। এই পূজায় জগত জননীর আরাধনা ও মাতৃ বিসর্জনের মাধ্যমে বাঙালি সকলকেই অন্তরের মধ্যে পায়। এই উৎসবের মধ্য দিয়ে বাঙালির ভাবুকতা দেশপ্রীতি মানবপ্রীতি ও অধ্যাত্বসাধনার আশ্চর্য সমন্বয় ঘটে। জ্যোৎস্না প্লাবিত কোজাগরী শারদ পূর্ণিমায় বাঙালির ঘরে ঘরে উচ্চারিত হয় সম্পদের অধিষ্ঠাত্রী দেবী লক্ষ্মীর আবহন মন্ত্র। পরবর্তী অমাবস্যা তিথিতে হয় নি মুণ্ডমালিনী এলোকেশী শ্যামা মায়ের বোধন ও বাঙালির দীপান্বিতা উৎসব। বহুবিচিত্র আতশবাজি ও সারিসারি প্রদীপের আলোকে স্বর্গের দেবতা কে মর্তের কুটিরে বরণ করে নেবার জন্যই যেন এই দিপালী উৎসবের পরিকল্পনা। কার্তিক ও জগদ্ধাত্রী পূজার পর আসে মাঘের শ্রীপঞ্চমী তিথিতে হংস বাহনা সর্বশুক্লা দেবী সরস্বতী বন্দনা লগ্ন। বছরের শেষ দিকে অনুষ্ঠিত হয় অন্নপূর্ণা পূজা। এছাড়া মুসলমান সমাজের মহরম, ঈদল ফেতর, শবে বরাত, বৌদ্ধদের বুদ্ধপূর্ণিমা ,খ্রিস্টানদের বড়দিন, গুড ফ্রাইডে, ইস্টার সাটারডে, গতানুগতিক বাঙালির জীবনকে প্রাণময় করে তোলে। বাঙালির প্রাচীন চিরাচরিত উৎসবগুলির সঙ্গে এই নবাগত উৎসব গুলি সম্মিলিত হয়ে যেমন তার উৎসবের ডালি কে সমৃদ্ধ করেছে তেমনই আনন্দ-বেদনার বিচিত্র রসে তার জীবন পাত্র কে তুলেছে কানায় কানায় পূর্ণ করে।

ঋতু উৎসব:-

ঋতুর পর ঋতু আসে সৌন্দর্যের প্রাচুর্যে বঙ্গ প্রকৃতিকে অপরূপ সৌন্দর্যময় অন্নপূর্ণা রূপে সাজিয়ে চলে যায়। প্রকৃতির সেই রূপসজ্জার বৈচিত্র বিলাসের মধ্যে বাঙালি খুঁজে পেয়েছে তার প্রাণের দেবতা কে। খরতপ্ত বৈশাখের পূর্ণ প্রভাতে শুরু হয় বাঙালির নববর্ষ উৎসব। বর্ষা সমাগমে আসে বৃক্ষরোপণ উৎসব। শরতের আকাশ বাতাস মুখরিত করে আসে শারদীয়া উৎসব। অগ্রাণে বাংলার ঘরে ঘরে নতুন ধানে নবান্ন উৎসবের লাগে ধুম। পৌষ মাসে নানা স্থানে জমে ওঠে পৌষ মেলা পিঠা পার্বণ তুষ তুষালি উৎসব। ফাল্গুন মাসের প্রকৃতি যখন বর্ণাঢ্য রূপসজ্জায় সেজে ওঠে তখন রঙের খেলা খেলবার জন্য আসে হোলি। তারপর চৈত্রের শূন্য পান্তরে গাজনের বাজনা বাজিয়ে পুরাতন বছর বিদায় নেয়।

সামাজিক উৎসব:-

বাঙালির সামাজিক উৎসব গুলি বাঙালির প্রাণপ্রাচুর্যে অফুরন্ত প্রতিচ্ছবি আর মহতি জীবনবোধের ইঙ্গিত। অন্নপ্রাসন, উপনয়ন, বিবাহ, শ্রাদ্ধশান্তি, জামাইষষ্ঠী, ভাইফোঁটা, চূড়াকরণ, শীতলা পূজা ইত্যাদিতে মেশানো থাকে বাঙালির সেই শুভ চেতনার পর্শ। বাংলার ব্রত উৎসবগুলোও বাংলার সামাজিক উৎসবের শাখা-প্রশাখা। পুণ্যিপুকুর ব্রত, ভাদুলি ব্রত, ইতু পূজা, বসুধারা ব্রত, মাঘমঙ্গল ইত্যাদি ব্রত কে ঘিরে প্রকাশ পেয়েছে বাঙালির সাংস্কৃতিক অপরূপ মাধুর্য-মহিমা।

জাতীয় উৎসব:-

সভ্যতার অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গতি রক্ষা করে বাঙালির উৎসব তালিকা সংযোজিত হয়েছে কয়েকটি নতুন উৎসব। এই নবাগত উৎসব গুলি তাদের স্বতন্ত্রের মহিমায় জাতীয় মর্যাদা লাভ করেছে। এদের মধ্যে প্রধান 15 ই আগস্ট —ভারতের স্বাধীনতা দিবস ও 26 শে জানুয়ারি —-ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবস। এছাড়া 25 শে বৈশাখ ,23 শে জানুয়ারি, দোসরা অক্টোবর , পয়লা মে, 12 ই জানুয়ারি সমগ্র ভারতে লাভ করেছে একটি সর্বভারতীয় মর্যাদা।

অন্যান্য উৎসব:-

এছাড়া বাংলার মাটিতে নব নব উৎসব এর জন্ম হয়েছে। যেমন –লোক উৎসব, নাট্যউৎসব, যাত্রা উৎসব, শিল্প উৎসব, ইত্যাদি। তাহলে দেখা যাচ্ছে উৎসব বাঙালির জীবনে সর্বত্র সর্বময়।

উৎসবের তাৎপর্য:-

উৎসব বাঙালির কাছে অপব্যয় বা অপচয় নয়। উৎসব মানুষের জীবনে আনে পবিত্র শান্তি ও আনন্দের বাণী। আমাদের সংকীর্ণ গণ্ডি কে অতিক্রম করে বিশ্ব জননীনতা বোধ জাগিয়ে তোলে। সকলকে মৈত্রী ও মঙ্গলের বন্ধনে আবদ্ধ করতে চায়। উৎসবের মধ্যে আমাদের সংস্কৃতিক ঐতিহ্যের মূল্য সকলের কাছে আকর্ষণীয় হয়ে ওঠে। উৎসব নিয়ে আসে নব নব সৃষ্টির প্রেরণা। উৎসব তাই বাঙালির জীবনে অপরিহার্য হয়ে উঠেছে। কত দৈব দুর্বিপাকে বাঙালির ভাগ্যাকাশে বিধাতার রুদ্ররোষের মত ঘনিয়ে এসেছে দুর্যোগের কালো মেঘ। কতবার বাঙালি প্রত্যক্ষ করেছে প্রাকৃতিক ও মানবিক কারণে নির্মম মৃত্যুর ভয়াবহ তান্ডব লীলা। কিন্তু বাঙালি তার দুর্বার প্রাণপ্রাচুর্যে দ্বারা তা জয় করে ক্রমাগত রচনা করে চলেছে আনন্দ-উৎসবের নিত্যনতুন পরিকল্পনা।

বর্তমানকালে উৎসবের রূপ:-

যান্ত্রিক সভ্যতার প্রসারের সঙ্গে সঙ্গে বাঙালির উৎসব এর মেজাজ অনেকটাই বদলে গেছে। তার অন্তরে সেদিনের মত সাড়া জাগে না। নানা গুরুভার সমস্যার চাপে তার উৎসব গুলি আজ নিষ্প্রাণ নিষ্প্রভ। নাগরিক সভ্যতার বিষাক্ত নিশ্বাসে ও পাশ্চাত্য সভ্যতার নিষ্ঠুর আক্রমণে তার উৎসবের আত্মা আজ তিরোহিত। আজ তার শুষ্ক, নীরস ,প্রাণহীন, যান্ত্রিকতা ময় উৎসবে প্রচুর মাইক্রোফোন আসে, হিন্দি গান বাজানো হয় অসংখ্য। ঘটা করে মণ্ডপসজ্জা, আলোকসজ্জা হয়। কিন্তু তাতে প্রাণ নেই। বহিরঙ্গ বিলাসে উৎসবের আত্মা আজ যেন গেছে হারিয়ে।

“যেখানে শুখায় পদ্ম বহু দিন বিশালাক্ষী যেখানে নীরব !
যেইখানে একদিন শঙ্খমালা চন্দ্র মালা মানিক মালার কাঁকন বাজিত ,
আহা ,কোনোদিন বাজিবে কি আর !”

উপসংহার:-

আমাদের মনে রাখতে হবে উৎসব মানে নগ্ন আনন্দ-উচ্ছ্বাস নয়, উৎসব মানে যথেচ্ছাচার নয়, উৎসব মানে বহিরঙ্গ বিলাস ও অশালীনতা নয়, উৎসব মানে প্রকৃত স্বর্গের নীর রচনা করা। উৎসব মানে প্রেম, উৎসব মানে বিবেক, উৎসব মানে মনুষ্যত্ববোধ এর জাগরণ। কবির ভাষায় —-

“প্রীতি প্রেমের পুণ্য বাঁধনে যবে মিলি পরস্পরে ,
স্বর্গ আসিয়া দাঁড়ায় তখন আমাদেরই কুঁড়েঘরে।”



সমাপ্ত


Related Posts

বাংলার উৎসব (Festival of Bengal)

“প্রতিদিন মানুষ ক্ষুদ্র দিন একাকী কিন্তু উৎসবের দিনে মানুষ বৃহৎ, সেদিন সে সমস্ত মানুষের সঙ্গে একত্র

Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on twitter
Twitter
Share on email
Email
Share on telegram
Telegram
error: Content is protected !!
Scroll to Top